98837-sntkতাঁরা কোনো তারকার সন্তান নন। বলিউডে ধুমধাম করে অভিষেক হওয়ার মতো শক্ত খুঁটির জোরও নেই তাঁদের। তবুও হর্ষবর্ধন রানে আর মাওরা হোসেনকে নিয়ে আগ্রহের যেন কোনো কমতি নেই। যখন থেকে তাঁদের সনম তেরি কসম ছবিতে হিমেশ রেশমিয়ার সুর করা গানগুলো পেয়েছে দর্শকসাড়া, তখন থেকেই যেন বলিউডের এই দুই নবাগতকে নিয়ে কৌতূহল আরও গাঢ় হয়েছে। ‘খিচ মেরি ফটো’, ‘তেরা চেহরা’ আর ‘সনম তেরি কসম’ গানগুলো এখন অনেকের মুখে মুখে। তা ছাড়া মাওরার ২১ ঘণ্টা বাথটাবের পানিতে ভিজে শুটিং করা আর হাতে-পায়ে চোট নিয়ে হর্ষবর্ধনের কাজ চালিয়ে যাওয়ার খবরে দর্শকদের আগ্রহ যেন তাঁদের ঘিরে আরও বেড়ে গেছে। তাই ‘মাচো’ হর্ষবর্ধন আর ‘মিষ্টি’ মাওরাকে নিয়ে সবার মনে এখন অনেক প্রশ্ন।
হর্ষবর্ধন ভারতের ছেলে আর মাওরা পাকিস্তানের। বলিউডের সঙ্গে তাঁদের তেমন পারিবারিক কোনো যোগাযোগ নেই। যদিও কিছুদিন হলো ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে অভিনেতা জন এব্রাহাম নাকি হর্ষবর্ধনের দূর সম্পর্কের ভাই। কিন্তু এর সঙ্গে হর্ষের অভিষেকের কোনো সম্পর্ক নেই। অর্থাৎ ভাই জন হর্ষের ছবিতে অতিথি চরিত্রে অভিনয় করছেন না, তা প্রযোজনা করছেন না আর ছবির প্রচারণার জন্য তাঁর প্রশংসা করে কোনো ভিডিও বা ছবি পোস্ট করেছেন না সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। চেনা চেনা হয়েও হর্ষের কাছে জনের পরিচয় অচেনাই রয়ে গেছে। ভারতীয় গণমাধ্যমকে হর্ষবর্ধন কিন্তু এসব কথা বেশ গর্ব নিয়েই বলছেন। বলাটাও স্বাভাবিক। কারণ আথিয়া শেঠি আর সুরজ পাঞ্চোলির মতো ‘তারকা সন্তান’রা নিজেদের পারিবারিক সম্পর্ক প্রকাশ করেও সফল হতে পারেননি। তাই হর্ষবর্ধন নতুন করে আর সেই চেষ্টা করছেন না। তিনি বলিউডে আসতে চাইছেন আগন্তুক হয়েই।
হর্ষবর্ধন কিন্তু তেলেগু ছবির পরিচিত মুখ। তাঁর কয়েকটি তেলেগু ছবি স্থানীয় বক্স অফিসে সাফল্য পেয়েছে। ভাগ্য যাচাইয়ের জন্য হর্ষ কাজ করেছেন ছোট পর্দাতেও। ‘লেফট রাইট লেফট’ নামে সাব টিভিতে প্রচারিত একটি টিভি সিরিয়ালে কাজ করেছেন তিনি।
এবার মাওরাকে চেনার পালা। বলিউডের এই নবাগত কিন্তু পাকিস্তানের তারকা। ওই দেশে বেশ নামডাক তাঁর। ইনস্টাগ্রামে এ মেয়ের অনুসারীর তালিকা বেশ লম্বা। পাকিস্তানের দর্শকেরা ভিজে এবং অভিনেত্রী হিসেবে মাওরাকে দারুণ পছন্দ করেন। মাওরা হোসেনের বোন উরওয়াও পাকিস্তানের জনপ্রিয় অভিনেত্রী। মাওরাকে নিয়ে বলিউডে তোলপাড় পড়ে তখন থেকে, যখন তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন বলিউড তারকা রণবীর কাপুর। তা ছাড়া মাওরার ইনস্টাগ্রাম ছবিতে নাকি রণবীরের মা নিতু সিংয়ের কথাও দেখা যায়।
বলিউডে পা রেখেই তিনটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন মাওরা। এর মধ্যে একটি তো সনম তেরি কসম, অন্য দুটির ব্যাপারে এখনো মুখ খোলেননি মাওরা। তাই কাপুরদের সঙ্গে সখ্য দেখে ধারণা করা হচ্ছে, অন্য দুটি ছবির একটিতে হয়তো রণবীরের বিপরীতেই দেখা যেতে পারে এই ইনস্টাগ্রামপ্রেমী তারকাকে।
মাওরাকে ঘিরে আরেকটি তথ্য। বলিউডে তাঁকে ঘিরে এখন নানা প্রশংসাবাণী শোনা যাচ্ছে। কিন্তু কিছুদিন আগে এ মেয়ে তাঁর নিজ দেশেই রীতিমতো ‘নিষিদ্ধ’ হয়ে যাচ্ছিলেন। কারণ পাকিস্তানে নিষিদ্ধ বলিউড ছবি ফ্যান্টমকে সমর্থন করে একটি টুইট করেছিলেন মাওরা। আর তাতেই ফুঁসে উঠেছিল পাকিস্তানের অনেকে। ‘ব্যান মাওরা’ হ্যাশট্যাগ দিয়ে পাকিস্তানিরা টুইট শুরু করে মাওরার বিরুদ্ধে। এই হ্যাশট্যাগ আবার পাকিস্তানে কিছু সময়ের জন্য বেশ জোরেশোরে প্রচার পায়। কিন্তু পরে ক্ষোভের সেই আগুনে মাওরা জল ঢেলে দেন। সনম তেরি কসম ছবির ট্রেলার প্রকাশ হওয়ার পরই মাওরার ‘দেশবিরোধী’ মন্তব্য করার বিতর্ক ভুলে যান পাকিস্তানের দর্শকেরা। পাকিস্তান ও ভারত দুই দেশই মেতে ওঠে মাওরা ও হর্ষবর্ধনকে নিয়ে। তাঁদের প্রেমের ছবি এখন আর কোনো ক্ষোভ কিংবা বিতর্ক ছড়াচ্ছে না। বরং বলিউডের দুই আগন্তুক এখন দুই দেশেই তাঁদের ছবি দিয়ে প্রেমের সুবাতাস ছড়ানোর অপেক্ষায় আছেন।প্রথম আলো।

SHARE

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY