kmছোট ও মাঝারি কারখানা স্থানান্তরের জন্য ঢাকা ও চট্টগ্রামের কাছাকাছি এলাকায় দুটি পোশাক শিল্পপার্ক চায় তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ। এটি সম্ভব না হলে অল্প পরিমাণে খাসজমি বরাদ্দ দেওয়ার দাবি করেছে তারা।
রাজধানীর বিজিএমইএর কার্যালয়ে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানান সংগঠনটির সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। পোশাকশিল্পের উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে ‘জরুরি’ এই সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সহসভাপতি এস এম মান্নান ও মোহাম্মদ নাছির, পরিচালক মিরান আলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ সময় গত ডিসেম্বরে আশুলিয়ার শ্রমিক আন্দোলনকে সম্পূর্ণ বেআইনি বলে উল্লেখ করেন বিজিএমইএর সভাপতি। তিনি বলেন, শ্রমিকদের কর্মবিরতি সম্পূর্ণ বেআইনি ছিল। এতে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন মালিকেরা। কারণ, কর্মবিরতির কারণে সময়মতো পণ্য উৎপাদিত হয়নি। সে জন্য অতিরিক্ত অর্থ খরচ করে উড়োজাহাজে পণ্য পাঠাতে হয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে পণ্য রপ্তানিতে ক্রেতাদের মূল্যছাড় দিতে হয়েছে।
মজুরি বৃদ্ধির বিষয়ে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘দেশে সরকার আছে। মজুরি বোর্ডের আইন আছে। প্রচলিত আইন অনুযায়ী মজুরি বাড়বে। আমরা শ্রমিকদের প্রতিবছর ৫ শতাংশ করে ইনক্রিমেন্ট দিয়ে যাচ্ছি।’
বিজিএমইএর সভাপতি বলেন, ‘ক্রেতাদের জোট অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্সের শর্ত পূরণ করতে অনেক কারখানা স্থানান্তর করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল করার ঘোষণা দিয়েছেন। এগুলো বাস্তবায়িত হতে দীর্ঘ সময় লাগবে। এই পরিস্থিতিতে সরকারের কাছে অনুরোধ, অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ঢাকা ও চট্টগ্রামের কাছাকাছি দুটি শিল্প জোন প্রতিষ্ঠা করে দিন। এটি না হলে অন্তত খাসজমি বরাদ্দ দেওয়া হোক। এতে করে পোশাক কারখানা রুগ্ণ হওয়া থেকে রক্ষা পাবে।’
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঘোষিত মুদ্রানীতিকে রক্ষণশীল ও পূর্বের মুদ্রানীতির পুনঃসংস্করণ হিসেবে মন্তব্য করেন বিজিএমইএর সভাপতি বলেন, রপ্তানি খাতের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বাড়াতে মুদ্রা বিনিময় হার সহায়ক করা এবং বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার বিষয়ে যথেষ্ট দিকনির্দেশনা নেই।
সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন বাজারে পোশাক রপ্তানি কমে যাওয়ার চিত্র তুলে ধরেন বিজিএমইএর সভাপতি। তিনি বলেন, বিশ্ববাজারে অস্থিরতা বিরাজ করছে। অন্যদিকে কারখানা সংস্কারকাজে অতিরিক্ত অর্থ খরচের চাপ আছে। এই প্রেক্ষাপটে ক্ষুদ্র ও মাঝারি কারখানা স্থানান্তর ও সংস্কারের জন্য বিশেষ পুনঃ অর্থায়ন তহবিল গঠন এবং ইউরো ও পাউন্ডের দরপতন মোকাবিলায় ব্যাংকের সুদের ওপর বিশেষ ভর্তুকির দাবি করেন তিনি।
আশুলিয়ার ঘটনা শ্রম আদালতে মীমাংসা না করে শ্রমিকনেতাদের বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা ও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘মামলা করা আমাদের দায়িত্ব না। আমাদের দায়িত্ব শিল্পকে সুরক্ষা দেওয়া। শ্রমিক ভাইবোনদের সুরক্ষা দেওয়া।’
সম্প্রতি বিদেশি ক্রেতারা শ্রমিকদের অধিকার সংরক্ষণ ও মজুরি বোর্ড গঠনের অনুরোধ করে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দেয়। বিষয়টি নিয়ে বিজিএমইএর সভাপতি বলেন, ‘ক্রেতারা আমাদের ব্যবসায়িক অংশীদার। তারা প্রথমেই প্রধানমন্ত্রীকে না লিখে অংশীদারদের লিখলে ভালো করত। কারণ, আমরা আমাদের ব্যবসা নিয়ে যথেষ্ট সচেতন।’

SOURCEprothom-alo
SHARE

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY